ঢাকাThursday , 14 October 2021
  1. English Content
  2. আন্তজাতিক
  3. ইসলামি শিক্ষা
  4. ইসলামিক নিউজ
  5. করোনাভাইরাস
  6. ক্যাম্পাস
  7. ক্রিকেট
  8. খেলাধুলা
  9. চাকরির খবর
  10. চাকরির প্রস্তুতি
  11. জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়
  12. ডিফেন্স
  13. তথ্য ও প্রযুক্তি
  14. পড়াশোনা
  15. ফুটবল

বিসিএসে English ও গণিত ভালো করার উপায় ও একজন BCS ক্যাডারের কিছু বাস্তব অভিজ্ঞতা

Mithu
October 14, 2021 2:26 pm
Link Copied!

আজ আমি আপনাদের সাথে আমার জীবনের কিছু বাস্তব অভিজ্ঞতা শেয়ার করব। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০০৯ সালে অনার্সে ভর্তি হওয়ার পর প্রথম ও দ্বিতীয় বছর মোটামুটি ঘুরাফেরা করেই কেটেছে বলা চলে। কিন্তু অনার্স তৃতীয় বর্ষে ওঠার পর ভার্সিটি ও হলের ভাইদের কাজ থেকে বিসিএস বিষয়ে জানার আগ্রহ জাগলো। কারণ ক্যাম্পাসে, হলে সবার মুখে মুখে বিসিএস পরীক্ষা নিয়ে, বিসিএস ক্যাডার নিয়ে এত কথা শুনতাম যে আগ্রহ না জাগার উপায় নেই। এই আগ্রহই পরে আমাকে অনেক দূর নিয়ে গেছে বলে আমি মনে করি। এরপর এই আগ্রহ থেকেই আমি যখনই শুনেছি যে, কোনো বিসিএস পরিচিত বা জানাশোনা কোনো ভাই ক্যাডার হয়েছেন বা অনেক দিন ধরে বিসিএস পরীক্ষার প্রিপারেশন নিচ্ছেন আমি তার কাছেই কিছু জানার জন্য, কিছু ভালো পরামর্শ পাওয়ার জন্য ছুটে গেছি; যখনই সুযোগ হয়েছে।

যদিও একেকজন একেক কথা, একেক ধরনের পরামর্শ দিতেন। তবে সবার সাথে কথা শুনে এতটুকু বুঝতে পারলাম যে, বিসিএস ক্যাডার হওয়া খুব সহজ বিষয় নয়, পরীক্ষা অনেকেই দেয় কিন্তু ক্যাডার সবাই হতে পারে না! আর যারা ক্যাডার হতে পারেন সবাই তাদেরকে অনেক মেধাবী, পরিশ্রমী ও সৌভাগ্যবান মনে করে। তারা পারিবারিক, সামাজিক এমনকি রাষ্ট্রীয়ভাবে বিভিন্ন ক্ষেত্রে অনেক বেশি মর্যাদা ও সুযোগ সুবিধা প্রাপ্ত হন। যেখানেই যায় সবাই সম্মান করে।

এই কথা বুঝার পর একটা চ্যালেঞ্জ নিলাম যে, যত কষ্টই হোক বিসিএস ক্যাডারই হবো অন্যকিছু নয়। এর জন্য যা যা করা লাগে সবই করব। যা কিছু ত্যাগ করা লাগে সবই করতে রাজি, তারপরও ক্যাডার হওয়া চাই-ই চাই!ক্যাডার হতে গেলে অনেক পড়তে হবে বড় ভাইয়েরা বললেন। কিন্তু কী পড়ব? কীভাবে পড়া শুরু করব? বুঝতে পারছিলাম নাম। তখন আমার রুমে মিল্টন নামের এক বড় ভাই ছিলেন, তিনি আমাকে একটা পরামর্শ দিয়ে বললেন, “মিজান, শোন এখনকার চাকরির বাজারে যে ইংলিশ আর ম্যাথে ভালো তার চাকরির অভাব হয় না।

আমি ম্যাথ, ইংলিশ কম পারি বলেই চাকরিটা হচ্ছে না। সেটা আমি বুঝতে পারছি। তোমার তো হাতে অনেক সময় আছে, এখন মাত্র থার্ড ইয়ারে পড়, তুমি এক কাজ কর এখন তুমি শুধু ম্যাথ, ইংলিশ পড়ো অন্যকিছু পড়া লাগবে না। বাকিগুলো ৬ মাস পড়লে এমনিতেই পারবে। কিন্তু ম্যাথ, ইংলিশ হলো দীর্ঘ মেয়াদি পড়াশোনার বিষয়, না বুঝে মুখস্থ করে লাভ নেই, ভালো করতে পারবে না। তাই বলি এখন শুধু ম্যাথ ইংলিশ পরো আর কিছু পড়ো না।”

*আমি এর বাস্তব ফলও পেয়েছিলাম জীবনে। অনার্স পরীক্ষা শেষ হওয়ার পরপরই ৩৪তম বিসিএসের সার্কুলার দিল। তখনো অনার্সের রেজাল্ট পাবলিশ হয়নি। এপেয়ার্ড সার্টিফিকেট দিয়ে ৩৪তম বিসিএস প্রিলি এপ্লিকেশন করি। জীবনের প্রথম বিসিএসেই প্রিলি, রিটেন, ভাইভা তিনটি স্তর পাশ করি কিন্তু কোনো ক্যাডার পাইনি । আমি ৩৪ তম বিসিএসে দ্বিতীয় শ্রেণির নন-ক্যাডার পদে নিয়োগের জন্য সুপারিশপ্রাপ্ত হয়েছিলাম যদিও আমি ঐ পদে জয়েন করি নি। ইতোমধ্যে পূবালী ব্যাংকে আমার সিনিয়র অফিসার পদে চাকরি হয়ে যায়। তারপর ৩৫তম বিসিএসে অংশগ্রহণ করলাম। ৩৫তম বিসিএস হয়েছিল সম্পূর্ণ নতুন সিলেবাসে ২০০ নম্বরের প্রিলি সেখান থেকে শুরু।

রিটেনের প্রশ্নের প্যাটার্ন টোটালি চেইঞ্জ, গতানুগতিক কোনো প্রশ্ন নয়। প্রিলি, রিটেনে যুক্ত হলো উচ্চতর গণিত। এতকিছুর পরও জীনের দ্বিতীয় বিসিএস, ৩৫তম বিসিএসে এসে বিসিএস ক্যাডার হওয়ার স্বপ্ন বাস্তবে রূপান্তরিত হয়। আমি বিসিএস ক্যাডার হিসেবে চূড়ান্তভাবে নিয়োগ পাই এবং পূবালী ব্যাংকের চাকরিটা ছেড়ে দেই।তারপর ৩৬ তম বিসিএস দিলাম, টিকলাম কিন্তু পিএসসি কোনো ক্যাডার দিল না। এরপর আবার ৩৭ তম বিসিএসে গত ০২/০১/২০১৮ তারিখে পিএসসিতে ভাইভা দিয়ে আসলাম। জানি না আল্লাহ ত’আলা রিজিকে কী রেখেছেন।

আবার আগের কথায় ফিরি, তারপর আমি ঢাকার নীলক্ষেতে গিয়ে Chowdhury & Hossain এর “Advanced Learners’ Functional English” বইটা আর “Saifur’s Student Vocabulary” টা কিনে এনে পড়া শুরু করলাম।প্রথম প্রথম যতই পড়ি English Grammar এর নিয়ম কিছুটা মনে থাকলেও Vocabulary কিছুই মনে থাকে না। হলের বড় ভাইদের সাথে বিষয়টা শেয়ার করলাম।ওনারা বললেন, “প্রথম যখন ভোকাবুলারি পড় ধরে নিবে এটা এমনিতে পড়তেছো, তোমার কিছুই মনে থাকবে না। দ্বিতীয় বার যখন যখন পড়বে কিছু কিছু মনে থাকবে। তৃতীয় বার যখন পড়বে তখন দেখবে অনেক মনে থাকতেছে। এইভাবে আস্তে আস্তে বাড়বে। আর পড়ার সসময় অবশ্যই খাতাই বার বার লিখে পড়বে।”
আবার পড়া শুরু করলাম নতুন করে। পরামর্শ অনেক কাজ করতে লাগলাম এবং ভালো পেতে শুরু করলাম। দিন যতই যায় দেখি Improvement হচ্ছে অনেক তবে আশান্বিত Improvement হচ্ছে না

পরে ঠিক করলাম ঘুম থেকে উঠে ফ্রেশ হয়ে প্রথমে ভোকাবুলারি পড়ব। নাস্তা খাওয়ার আগে শুধু ভোকাবুলারি পড়তাম আর কিছু নাম। দেখি ৪ মাসের মধ্যে মোটামুটি ভালোভাবেই আমার Saifur’s Vocabulary বইটা শেষ হল। দেখলাম আগের চেয়ে অনেক বেশি ভোকাবুলারি পারি।
তারপর “Saifur’s Vocabulary” বইটা অর্থাৎ বড় বইটা কিনে পড়া শুরু করলাম। Saifur’s Student Vocabulary” আগে পড়া থাকায় এটা শেষ করতে বেশি সময় লাগে নি।

এবার ইংলিশ গ্রামারের কথায় আসি, প্রথমে ভালো করে “Parts of Speech” শেষ করলাম তারপর Tense, এরপর Subject Verb Agreement + Right Forms of Verb. তারপর Preposition যেটা বিসিএস সহ যে কোনো চাকরির পরীক্ষার কমন টপিক, তারপর Group Verb এবং Phrase & Idioms শেষ করার পর আর কখনো পিছনে ফিরতে হয়নি। ২টি বেসিক বই ইংলিশ গ্রামার শেখার ক্ষেত্রে আমাকে ব্যাপক সাপোর্ট দিয়েছে-
১. Chowdhury & Hossain এর “Advanced Learners’ Functional English” (communicative টা নয়)

২. Applied English Grammar and Composition – by P C Das বইটি
এবার আপনাদের বিষয়ে আসা যাক। কীভাবে পড়বেন ইংলিশ?

ইংলিশে আমাদের দুর্বলতার মূল কারণের উদ্ভব সেই স্কুল লাইফে। তার কারণ হলো আমাদের বেশিরভাগ শিক্ষার্থীই স্কুল লাইফে ভালো ইংলিশ টিচার্স পায় নি। কেউ কেউ বলেও সেটা আবার Communicative English যেখানে ভালো করে English Grammar শেখার সুযোগ কম। আমাদের স্কুল লেভের বেশির শিক্ষক English কে একটি আতঙ্কজনক বিষয় হিসেবে, কঠিন বিষয় উপস্থাপন করতেন। এর মূল কারণ কী ছিল আমার পুরোপুরি বোধগম্য নয়, প্রাইভেট পড়ানোর জন্য নাকি ওনি নিজেই ঐ বিষয়ে পরিষ্কার ধারণা রাখেন না?
ইংলিশের জন্য আমি আগে বলবো, আপনি আগে বেসিক ইংলিশ বই শেষ করুন। যেমন : Advance Learners’ Functional English by Chowdhur & Hossain, Applied English Grammar and Composition – by P C Das বইগুলো শেষ করুন বিসিএস প্রিলি সিলেবাস অনুযায়ী।

তবে প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে ওঠে ২টি গণিত সূত্র মুখস্থ করার সাথে সাথে Saifur’s Vocabulary থেকে ৫-৬ টি শব্দ মুখস্থ করুন। আস্তে আস্তে সেটি ১০-১৫ টায় নিয়ে যান। Vocabulary পড়ার সময় একটু শব্দ করে পড়বেন এবং খাতায় বার বার লিখবেন তাহলে মনে থাকবে বেশি দিন। অনেকে আবার বলতে পারেন, Vocabulary পড়ি কিন্তু মনে থাকে না, কী করব?

তাদের বলবো, আপনি যখন প্রথমবার Word Meaning পড়েন তখন মনে করবেন প্রথম কিছু মনে থাকবে না, তারপর পড়ুন কিছু মনে থাকবে, আবার পড়ুন ক্রমান্বয়ে মনে থাকার পরিমাণ বাড়বে। Vocabulary বইয়ের মধ্যকার শুধু বড় বড় শব্দগুলো পড়বেন বাংলা অর্থসহ, তারপর সাথে Synonym পড়বেন, তৃতীয়বার মূল শব্দের সাথে Antonym পড়বেন। চতুর্থবার মুল শব্দের সাথে Synonym এবং Antonym মিলেয়ে পড়বেন। এইভাবে পড়লে Effective হবে। আরেকটি বিষয় মনে রাখতে হবে, আপনি ইংলিশ যখন যা কিছু পড়েন না কেন একটা Word Meaning-ও না জেনে পড়বেন না।

ইংলিশ Word Meaning এর জন্য আমি বলবো বাংলা একাডেমির “English to Bengali” ডিকশনারিটা খুব কাজের।
* এরপর আমি ইংলিশ প্র্যাকটিস বই হিসেবে “English For Competitive Exam” বইটি শেষ করেছিলাম। এর বাইরে আমি অনেক দেশি-বিদেশি অনেক রাইটারের ইংলিশ বই পড়েছি বেশি বেশি জানার জন্য।
*যদি আপনার হাতে যদি সময় থাকে দৈনিক Daily Star পেপারটি পড়ার অভ্যাস গড়ে তুলুন, কাজে দিবে।
আমি দেখেছি বাংলাদেশের অধিকাংশ চাকরি প্রত্যাশী English এবং Math এ দুর্বল ।

আপনি যদি গণিতে দুর্বল হন, আগে গণিতের একটা চার্ট কিনে বেসিক সূত্রগুলো মুখস্থ করে ফেলুন প্রতিদিন ২/৩ টা করে। দৈনিক ২-৩ টার বেশি সূত্র পড়বেন না। কারণ একসাথে বেশি সূত্র পড়লে মনে থাকবে না ভালো করে। যদি এইভাবে পড়েন নিয়মিত, দেখবেন আপনার সব সূত্র মুখস্থ হয়ে গেছে ১-২ মাসের মধ্যে। এর পাশাপাশি দৈনিক রুটিনে ক্লাস ফাইভ থেকে টেন পর্যন্ত টেক্সবুকের অংকগুলো করে ফেলুন। গণিতে ভালো করার জন্য প্র্যাক্টিসের কোনো বিকল্প নেই। তারপর বিসিএস প্রিলিতে আসা বিগত সালের গণিতে প্রশ্নগুলো সমাধান করে ফেলুন (প্রয়োজনে অভিজ্ঞদের সাহায্য নিন কিংবা গ্রুপ স্টাডি করুন)।

*গণিতের টেক্সটবুক শেষ হলে আমি বলবো আমি George’s MP3 গণিত বইটি শেষ করুন। এর পারলে ” প্রফেসর’স স্পেশাল গণিত” বইটি দেখতে পারেন।আপনি এইভাবে ম্যাথ করলে বিসিএস রিটেনের ম্যাথের নিয়ে তেমন টেনশন করতে হবে না।
*তারপরও কারো হাতে যদি একদম সময় না থাকে তাহলে আপনি কেবল George’s MP3 Math Review শেষ করলে ম্যাথে বড় কোনো সমস্যা থাকবে না।আবার বলছি ম্যাথের জন্য সূত্র শেখা এবং ব্যাপক প্র্যাকটিসের কোনো বিকল্প নেই। ম্যাথের জন্য শর্টকাট না করে ব্রডলি শেখা ভালো, কারণ তা রিটেনেও কাজে দিবে। আর আপনি যখন ব্রডলি ম্যাথ পড়বেন নিজেই শর্টকাট মেথড বের করতে পারবেন। সবকিছু শর্টকাট খুঁজলে এত শর্টকাট নিময় মনে রাখার জন্য তার জন্য আমার শর্টকাট লাগবে। তবে হ্যাঁ কিছু কিছু বিষয় শর্টকাটে মনে রাখা যায়, তবে সবকিছু নয়।

***বি.দ্র: আপনি যেসব বিষয়ে দুর্বল তা দিয়ে শুরু করার পর আপনি যখন দেখবেন যে- আপনি আর কোনো বিষয়ে দুর্বল নয়, তখন আপনার মনোবল ও আত্মবিশ্বাস অনেক গুণ বেড়ে যাবে। আর মনে রাখবেন বিসিএস হলো মনোবল ও আত্মবিশ্বাসের পরীক্ষা, যার মনোবল ও আত্মবিশ্বাস যত বেশি সে তত দ্রুতই সফল হবে ইনশাআল্লাহ!

*আমি মনে করি এবং দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি যে, কেউ যদি আমার লিখা বাংলাদেশের প্রথম সাজেশনভিত্তিক বই “BCS Preliminary Analysis” বইটি বুঝে বুঝে পড়ে সম্পূর্ণভাবে শেষ করে এই বইটিই বিসিএস প্রিলি পাশের জন্য যথেষ্ট ইনশাল্লাহ ; কেবল আপডেট থাকার জন্য এই বইটি সাথে প্রত্যেক মাসের “কারেন্ট অ্যাফেয়ার্সটি” পড়তে হবে আর কিছু লাগবে না। এই বইটি আমার আমার দীর্ঘ ৪-৫ বছরের বিসিএসের অভিজ্ঞাতার আলোকে এবং আমার বিসিএসের সকল সাজেশন ও নোট দিয়ে রচিত। যেসব নোট, সাজেশন ফলো করে আমি ব্যাংকের চাকরির মতো এতো প্রেসারের চাকরির মাঝেও বিসিএসের প্রিপারেশন নিয়েছিলাম এবং আল্লাহর রহমতে বাছাই করে এতো অল্প পড়েও আমি অনেক কমন পেয়েছি এবং ফাইনালি ভালো কিছু পেয়েছি। তাহলে আপনিও সেই নোট, সাজেশনগুলো পড়তে পারেন, ইনশাল্লাহ আপনিই ভালো কিছু পাবেন।

তারপরও যাদের হাতে অনেক সময় আছে আমি মনে করি তাদের “BCS Preliminary Analysis” বইটির পাশাপাশি আরো সূক্ষ্ম প্রস্তুতির জন্য আরো কিছু বই পড়া উচিত যা তাদের জ্ঞানের পরিধি যেমন বিস্তৃত করবে, তেমনিভাবে বিসিএস রিটেনে অনেক হেল্প করবে।

 

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।